বুধবার ২৯ মার্চ ২০১৭


স্বকৃত নোমান এর সাহিত্যকর্ম


আমাদের অর্থনীতি :
15.02.2017

সৈয়দ রশিদ আলম
বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের যেসব লেখক সাহিত্যিক পাঠক মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন, পাঠক প্রিয়তা পেয়েছেন তাদের একজন হলেন স্বকৃত নোমান। উপন্যাসের সঙ্গে সঙ্গে তিনি গল্প ও প্রবন্ধ লিখে থাকেন। জাতীয় পত্র-পত্রিকায় ও টিভি-চ্যানেলে প্রায় তাকে দেখা যায়। এবার একুশে বইমেলায় ‘শেষ জাহাজের আদমেরা’ শিরোনামে তার একটি উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছে। অন্যান্য তার উপন্যাসের মতো এই উপন্যাসেও ভিন্ন একটি বিষয়কে তিনি নিয়ে এসেছেন। এই উপন্যাসের বিষয়বস্তু হচ্ছে, বাংলাদেশ থেকে যারা নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করার জন্য নৌপথে সাগর পাড়ি দিয়ে মালয়েশিয়ায় যেতে চাচ্ছিলেন তাদের কথা বর্ণনা করা হয়েছে। এই উপন্যাসে একদল অসহায় মানুষের ভাগ্য ফেরানোর কথা বলা হয়েছে, সেইসঙ্গে বলা হয়েছে সাগর পথে দুর্দশার কথা।
প্রিয়জনকে, আপনজনকে একাকি করে যারা সাগর পথে দালালের কথায় প্ররোচিত হয়ে সাগর পাড়ি দিচ্ছেন এই উপন্যাসের পাতায় পাতায় তা বর্ণিত হয়েছে। এর পূর্বে তিনি একাধিক উপন্যাস লিখেছেন। তার লেখা ‘কালকেউটের সুখ’ উপন্যাসে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর ভয়াবহ নির্যাতনের কথা বর্ণনা করা হয়েছে। যারা এই উপন্যাসটি পড়েছেন তারা নির্যাতিত মানুষের হাহাকার, কান্না উপলব্ধি করেছেন। দেশহারা, সর্বহারা মানুষের বর্ণনা প্রতিটি পাতায় পাতায় লিপিবদ্ধ হয়েছে। তার আর একটি উপন্যাস হচ্ছে, বেগানা, বাংলা ভাষায় প্রথমবারের মতো মায়ানমারের অসহায় রোহিঙ্গা মুসলমানদের দুঃখ-দুর্দশার কথা ‘বেগানা’ উপন্যাসে বর্ণিত হয়েছে। মায়ানমারের বৌদ্ধ দানবরা অসহায় রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর কত প্রকার অত্যাচার চালাতে পারেন তা বেগানা উপন্যাসে বর্ণিত হয়েছে। বাংলা ভাষার কোনো সাহিত্যিক এর আগে রোহিঙ্গা মুসলমানদের দুর্দশার কথা লেখেননি। লিখেছেন, স্বকৃত নোমান।
রোহিঙ্গা মুসলমানরা কখনো বাংলাদেশে চলে আসছেন, কখনো সাগর পাড়ি দিয়ে মালয়েশিয়া অথবা ইন্দোনেশিয়ায় চলে যাচ্ছেন। যাবার পথের যন্ত্রণার কথা, কান্নার বর্ণনা বড় দরদের সঙ্গে লেখক বেগানা উপন্যাসে লিখেছেন। উপন্যাসটি কালকেউটের সুখের মতোন ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছিল। এছাড়াও তার আরেকটি উপন্যাস হচ্ছে, ‘জলেস্বর’ এই উপন্যাসে যাযাবর সান্দার সম্প্রদায়ের ভালো লাগা, ভালোবাসা, হারানোর কথা ব্যক্ত হয়েছে। উপন্যাসের প্রতিটি অধ্যায়ে যাযাবর সম্প্রদায়ের একাকি ঘুরে বেড়ানোর কথা যেমন বর্ণনা করা হয়েছে, তেমনি এক সান্দার যুবকের সবকিছু হারানোর কথা, তারপর হঠাৎ করে একজনকে কাছে পাওয়া, তারপর তাকে হারানোর কথা জলেস্বর উপন্যাসে বলা হয়েছে। জলেস্বর উপন্যাস হচ্ছেÑ স্বকৃত নোমানের অন্যতম সেরা উপন্যাস। এছাড়া তিনি ‘হীরকডানা’ ও ‘রাজনটী’ নামে দুটি উপন্যাস লিখেছেন। আরও দুটি উপন্যাস তিনি লিখেছেন প্রথম দিকে। এছাড়া তার দুটি গল্পগ্রন্থ বেরিয়েছে, তা হচ্ছেÑ ‘নিশিরঙ্গিনী’ ও ‘বালিহাঁসের ডাক’।
এ দুটি গল্পের বই পাঠক মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল। তিনি যখনই কোনো গল্প লেখেন, উপন্যাস লেখেন বা প্রবন্ধ লেখেন অত্যন্ত পরিশ্রমের সঙ্গে লেখেন। গবেষণা করে লেখেন, যে কারণে তার প্রতি সৃষ্টি পাঠক মহলের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে। একুশে বইমেলা-২০১৭, স্বকৃত নোমান রচিত শেষ ‘জাহাজের আদমেরা’ আশা করি পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করবে। বইটি প্রকাশ করেছে-অনিন্দ্য প্রকাশ, প্রচ্ছদ করেছেন- ধ্রুব এষ। বইটির মূল্য ৩৫০ টাকা। বইটির বহুল প্রচার কামনা করছি।
লেখক: কলামিস্ট
সম্পাদনা: আশিক রহমান