বুধবার ২৬ এপ্রিল ২০১৭


ভাষা শহীদদের মর্যাদা


আমাদের অর্থনীতি :
17.02.2017

 

মাওলানা মিরাজ রহমান

ইসলামে শহীদদের বিশেষ মর্যাদা রয়েছে। শহীদ দুই প্রকার। এক. ইসলামের জন্য আল্লাহর পথে নিজের জীবন উৎসর্গ করেছেন যারা অথবা যাদের অন্যায়ভাবে হত্যা করা হয়েছে। দুই. কোনো মহামারীতে, পানিতে ডুবে, অগ্নিদগ্ধ হয়ে অথবা কোনো ভবন বা স্থাপনা ধসে তার নিচে চাপা পড়ে যদি কোনো মুসলমান প্রাণ হারায়; ইসলামের দৃষ্টিতে শহীদ বলে বিবেচিত হবেন তারা। এমনিভাবে সন্তান প্রসবের সময় কোনো নারী যদি মৃত্যুবরণ করেন, তিনিও শহীদ বলে গণ্য হবেন। বাংলাদেশের মুসলমানরা ভাষার জন্য যে আত্মত্যাগ করেছেন পৃথিবীর ইতিহাসে তা বিরল। সালাম, জব্বার, রফিক ও বরকতরা মাতৃভাষার জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করে আমাদের ধন্য করেছেন। অন্যের হাতে অন্যায়ভাবে মৃত্যুবরণ করেছেন তারা। ইসলামের আলোচনা অনুযায়ী ভাষার জন্য যারা প্রাণ দিয়েছেন, তারা শহীদ। সম্পদের জন্য, স্বাধীনতার জন্য এবং ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য মানুষ দেশে দেশে লড়াই করে, কিন্তু মাতৃভাষার জন্য লড়াইয়ের ইতিহাস শুধু বাঙালিই তৈরি করেছে। শহীদের মর্যাদা সম্পর্কে বিভিন্ন হাদিসে ভিন্ন ভিন্ন আলোচনা এসেছে। এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, ‘ঋণ ব্যতীত শহীদের সব গুণাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।’ কেননা শাহাদাত তথা অন্যান্য নেক আমল দ্বারা কেবল আল্লাহর হক মাফ হয়। কিন্তু ঋণ তথা বান্দার হক আল্লাহ ক্ষমা করবেন না যতক্ষণ পর্যন্ত হকদার ব্যক্তি ক্ষমা না করেন। জামে তিরমিজি শরিফে বর্ণিত হয়েছে, ‘শহীদকে মহান আল্লাহ তায়ালা প্রথমেই ক্ষমা করে দেন। এরপর জান্নাতে তার আবাসস্থল দেখানো হয়, কবরের ভয়াবহ আজাব থেকে হেফাজত রাখবেন। কিয়ামত দিবসের ভয়াবহতা থেকে নিরাপদে থাকবেন এবং তার মাথায় বিশেষ মুকুট পরিধান করানো হবে।’

মহান আল্লাহ তায়ালা শহীদদের ব্যাপারে ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা তাদের (শহীদদের) মৃত বলো না। তারা আল্লাহর কাছে জীবিত এবং আল্লাহর পক্ষ থেকে বিশেষভাবে রিজিকপ্রাপ্ত হন’।

সুতরাং ভাষা শহীদ কিংবা যে কোনো ধরনের শহীদ হোন না কেন, মহান আল্লাহর কাছে রয়েছে তার জন্য আলাদা মর্যাদা এবং ইসলাম তাকে প্রদান করেছে বিশেষ গুরুত্ব। একজন মুসলমান হিসেবে আমাদের উচিত বাংলা ভাষার জন্য যারা প্রাণ দিয়েছেন, তাদের জন্য মহান আল্লাহর কাছে দোয়া-প্রার্থনা করা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে ভাষা শহীদদের প্রকৃত মর্যাদা প্রদান করার তাওফিক দান করুন।