সোমবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭


আফগান রাষ্ট্রদূতকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তলব


আমাদের অর্থনীতি :
17.02.2017

ইমরুল শাহেদ: পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে একটি প্রতিবাদলিপি হস্তান্তর করেছে। আফগান দূতাবাসের ডেপুটি হেড এই প্রতিবাদলিপি গ্রহণ করেন। প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, সন্ত্রাসীরা আফগান ভূমি ব্যবহার করে পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে হামলা পরিচালনা করছে। সন্ত্রাসী গ্রুপ জামাত-উল-আহরার-এর আফগানিস্তানে শক্ত ঘাঁটি রয়েছে। সেখান থেকেই তারা পাকিস্তানের বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ‘এর আগে দুই দেশের গোয়েন্দাদের মধ্যে এই বিষয়ে যে তথ্য বিনিময় হয়েছে তাও স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে ডেপুটি হেডকে। আফগানিস্তান আগেও সন্ত্রাসীদের মুলোৎপাটন, তাদের ঘাঁটি, অর্থদাতা এবং যারা তাদের ভূমিতে থেকে সন্ত্রাসী কর্মকা- চালাচ্ছে তাদের নির্মূল করার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে।’

ইতোমধ্যে বেসামরিক ও সামরিক নেতৃবৃন্দ একটি বৈঠকে মিলিত হয়ে সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী হামলাগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছে। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেছেন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বাইরে থেকে যেসব হামলা হচ্ছে তা অবশ্যই উৎখাত করতে হবে। যারা দেশের শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে মনে হয় রাষ্ট্রের ক্ষমতা দিয়েই তাদের প্রতিহত করতে হবে।’ তবে কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হবে বা সন্ত্রাস ও উগ্রবাদ কিভাবে সমূলে বিনাশ করা হবে তা নিয়ে বিবৃতিতে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

বৈঠকে যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে রয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খান, অর্থমন্ত্রী ইশহাক ধর, সেনাপ্রধান কামার জাভেদ ওমর, জেনারেল স্টাফ প্রধান লে. জে. বিলাল আকবর, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা (অব.) লে. জে. নাসের জানজুয়া, আইএসআইয়ের (সন্ত্রাসবিরোধী) মহাপরিচালক, গোয়েন্দা ব্যুরোর মহাপরিচালক এবং অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তা।

বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে সন্ত্রাসী হামলা হওয়ার প্রেক্ষাপটে। সুতরাং বিবৃতিটি দেওয়া হয়েছে বেসামরিক লোকদের দুশ্চিন্তা ও ভয় দূর করার জন্য এবং নতুন কোনো হামলার ব্যাপারে সতর্ক করার জন্য। গত কিছুদিন থেকে পাকিস্তানের বিভিন্ন স্থানে যেসব হামলা হয়েছে তার দায় স্বীকার করেছে দুটি সন্ত্রাসী গ্রুপ। এই দুটি সন্ত্রাসী গ্রুপ হলো জামাত-উল-আহরার এবং তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি)। একটি গ্রুপ বলেছে, তারা ‘অপারেশন গাজী’ নামে যে অভিযান শুরু করেছে সাম্প্রতিক হামলাগুলো তারই অংশ মাত্র। সূত্র : ডন