মঙ্গলবার ২৪ অক্টোবর ২০১৭


প্রসঙ্গ : শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী 


আমাদের অর্থনীতি :
11.08.2017

আহমদ আবদুল্লাহ

শিক্ষাদান এবং শিক্ষা গ্রহণ, এরূপ দেয়া-নেয়ার মাধ্যমে গড়ে ওঠে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সুন্দর সম্পর্ক। দাতা গ্রহীতার সম্পর্কের চেয়ে অনেক পবিত্র এ সম্পর্ক। শিক্ষকের কাছ থেকে শিক্ষার্থী কেবলই জ্ঞান লাভ করে না, তার উপদেশ ও পরামর্শ থেকে পায় জীবন ও চরিত্র গঠনের মূল্যবান নির্দেশনা। শিক্ষকের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা দ্বারা সমৃদ্ধ হতে চাইলে তার প্রতি শিক্ষার্থীকে হতে হবে শ্রদ্ধাশীল ও অনুগত, থাকতে হবে তার উপর গভীর আস্থা। আর তখনই শিক্ষক শিক্ষার্থীকে সর্বোত্তম শিক্ষায় শিক্ষিত করতে সক্ষম হবেন। এর ফলে সাধিত হবে শিক্ষার মহৎ উদ্দেশ্য এবং প্রতিষ্ঠানে সৃষ্টি হবে সুন্দর পরিবেশ। শিক্ষার্থীর দুর্বিনীত আচরণ শিক্ষককে নিদারুণ হতাশায় ভরে তুলে, বিনিময় শিক্ষার্থী কিছুই লাভ করে না। অবাধ্য ও দুর্বিনীত শিক্ষার্থী শিক্ষকের কাছ থেকে শিখতে পারে না কিছুই, তার অর্জন কেবলই শূন্য।

শিক্ষক মহৎ সেবা দানে নিয়োজিত। তার এ সেবা অর্থ দিয়ে পরিমাপ করা যায় না, যেমনি যায় না মাতা-পিতার সেবা সন্তানের প্রতি। মাতা-পিতা সন্তান জন্ম ও প্রতিপালনের গুরু দায়িত্ব পালন করেন আর শিক্ষক তাকে শিক্ষিত করেন। তার হৃদয়-মনকে জ্ঞানালোকে উদ্ভাসিত করেন, তাকে সমাজে মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করেন। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মাঝে সে সম্পর্ক তা সকল হীন স্বার্থ ও সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে। শিক্ষার্থীর কাছ থেকে শিক্ষক কিছু প্রত্যাশা করেন না। শিক্ষক শিক্ষার্থীর মাঝে দেখতে চান জ্ঞানের আলো, বুদ্ধিবৃত্তির বিকাশ এবং পরিচ্ছন্ন ও সচেতন মন। শিক্ষার্থীর কাছ থেকে শিক্ষক আশা করেন, সদাচারণ ও সৎস্বভাব। শিক্ষার্থীকে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে দেখে শিক্ষক আনন্দিত হন। বিপথগামী হতে দেখে ব্যথিত হন। শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষকের যে ব্যাকুলতা, তা না পাওয়ার হতাশা নয়, বরং হারিয়ে যাওয়ার বেদনা, শিক্ষার্থীর সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত না হওয়া বেদনা, জীবনে প্রতিষ্ঠিত না হওয়ার বেদনা।

শিক্ষার্থীর মাঝে যুগ যুগ বেঁচে থাকেন শিক্ষক। শিক্ষকের জ্ঞান ও দর্শন, শিক্ষা ও জীবনবোধ তার অজান্তে শিক্ষার্থীর মাঝে প্রোথিত হয়। জীবন সায়াহ্নে পৌঁছে কোনো কোনো শিক্ষার্থী  তার প্রিয় শিক্ষকের স্মৃতিচারণ করে। এ প্রিয় শিক্ষকই তার জীবনকে নাড়া দিয়েছে বিরাট করে, প্রভাবিত করেছে প্রবলভাবে। সৎ এবং নিষ্ঠাবান শিক্ষকই কেবল শিক্ষার্থীকে শিক্ষিত করতে এবং জীবন ও চরিত্র গঠনে তাকে প্রভাবিত করতে সক্ষম। আর এমন শিক্ষকই জাতির কাম্য, সবার কাছে সম্মানীয়। যে শিক্ষক শিক্ষার্থীর সামনে কোনো আদর্শ ও মূল্যবোধ উপস্থাপন ও তা লালনে সক্ষম নন, তিনি কখনোই ভালো শিক্ষক হতে পারেন না। নীতি ও নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষক কখনও শিক্ষার্থীর আদর্শ ও প্রিয় শিক্ষক হতে পারেন না। কেননা, তিনি শিক্ষার্থীকে যথাযথ শিক্ষিত ও চরিত্রবান করে গড়ে তুলতে ব্যর্থ হন।

প্রতিটি শিক্ষার্থীর মাঝে লুকিয়ে আছে প্রতিভা, সুপ্ত হয়ে আছে মানবিক ও নৈতিক মূল্যবোধ। তারই যথার্থ বিকাশ ঘটাতে হবে। তাকে উত্তম চরিত্রের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এর জন্য প্রয়োজন জ্ঞানানুশীলনে শিক্ষার্থীর আন্তরিক প্রচেষ্টা। কর্তব্য পালনে শিক্ষকের নিষ্ঠা ও সততা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শান্তিপূর্ণ শিক্ষার অনুকূল পরিবেশ এবং মানবিক ও নৈতিক মূল্যবোধ সম্পূর্ণ শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে শিক্ষাদানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীর ব্যক্তিত্বের সুসমন্বিত বিকাশ। শিক্ষার্থীকে সৎ ও নিষ্ঠাবান হিসেবে যেমনি গড়ে তুলতে হবে, শিক্ষা সমাপনের সঙ্গে সঙ্গে তেমনি উৎপাদনশীল কাজে নিয়োজিত হওয়ার সুযোগও থাকতে হবে বিস্তৃত ও অবারিত।

লেখক: শিক্ষক, মাদ্রাসা বাইতুন নূর, ঢাক