সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭


অসন্তোষ থাকলেও রাস্তায় নামছে না মানুষ : ড. তোফায়েল আহমেদ


আমাদের অর্থনীতি :
13.09.2017

লিপি পারভীন: রাজনীতি একটি চলমান ও জীবন্ত সামাজিক প্রক্রিয়া। এটি কোনো স্বাধীন প্রপঞ্চ নয়। একটি দেশের রাজনীতি অনেকগুলো সন্নিহিত বিষয়ের সঙ্গে সংগতি রেখে প্রবাহমান ¯্রােতের মতো সমাজকে ধাবিত করে। কখনো খর¯্রােতা নদীর মতো, কখনো মন্থর গতি হয়, আবার কখনো থমকে দাঁড়ায়। আজ থেকে চার-পাঁচ দশক আগে বাংলাদেশের রাজনীতিতে রাজপথের আন্দোলন অনেক বড় ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছিল। রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমেই রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো নির্মিত হতো। কিন্তু বর্তমানে মানুষ তার অসন্তোষগুলোকে পুষে রাখছে, কিন্তু রাস্তায় নামছে না বলে মনে করেন স্থানীয় সরকার বিশেষেজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ। রোববার দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এই মন্তব্য জানান।

রাজনীতিকে গতিশীল করতে হবে। আর রাজনীতিকে গতিশীল করার একটা বড় উপাদান এই মুহূর্তে হতে পারে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন। কেননা সমাজকে টিকিয়ে রাখতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন। এদেশের মানুষ গণতন্ত্রকামী, ফলে তাদের ভিতরে পুষে থাকা রাগ, ক্ষোভ ও অসন্তোষ একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে প্রশমিত হতে পারে। একটি স্বাধীন দেশের উন্নয়নে গণতন্ত্র চর্চা করতে হবে। আমরা যদি মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর অবস্থা পর্যালোচনা করি, তাহলে সেখানে বর্তমানে সন্ত্রাস ও যে সহিংসতা বিরাজমান তার অন্যতম কারণ হলো গণতন্ত্রহীনতা। রাশিয়ায় সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর বামপন্থীদের স্থানে ডানপন্থীদের চরম উত্থান দেখা দিয়েছে। ফলে মানুষের স্বাধীন চিন্তা বাস্তবায়নের সুযোগ হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বিচারে বাংলাদেশ খুব ক্ষুদ্র রাষ্ট্র নয়। এদেশ একটি উদীয়মান অর্থনীতির দেশ। শিক্ষা, প্রযুক্তি ও অন্যান্য ক্ষেত্রে দক্ষ মানুষের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজনীতিতেও একটা পরিবর্তন ঘটেছে।

এছাড়া এদেশে মানুষ প্রকৃতিগতভাবেই উদারনৈতিক মনোভাব পোষণ করে থাকে। কিন্তু একদিকে উদারনৈতিক মনোভাব থাকলে নিজের মতামত অন্যের উপর চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা থাকে। আমি নিজের ক্ষেত্রে হয়তো উদারনৈতিকতা প্রত্যাশা করছি, কিন্তু আমি অন্যদের বেলায় কতোটা উদার হতে পারছি সেটা ভাবার বিষয়।