রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭


রুশ এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কিনছে তুরস্ক


আমাদের অর্থনীতি :
13.09.2017

আরটিএনএন : রাশিয়ার কাছ থেকে ২৫০ কোটি ডলারের এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কিনছে তুরস্ক। এ বিষয়ে মস্কোর সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন করেছে আঙ্কারা।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান বলেছেন, আঙ্কারা ইতোমধ্যে চুক্তির অর্থও পরিশোধ করেছে। সামরিক বাহিনীর বিচারে ন্যাটোর দ্বিতীয় বৃহত্তম সদস্য তুরস্ক। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় রাশিয়ার দিকে ঝুঁকে পড়েছে তুরস্ক। রাশিয়ার সঙ্গে সুদৃঢ় সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করছে আঙ্কারা।

তুরস্কের কুর্দি বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত সিরীয় কুর্দি বাহিনী ওয়াইপিজে-কে সমর্থন না দিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানায় এরদোগান প্রশাসন। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র তাদের কথা শোনেনি।

রাশিয়া জানিয়েছে, এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থার পাল্লা ৪০০ কিলোমিটার। এটি একই সঙ্গে ৮০টি বিমান গুলি করে ভূপাতিত করতে পারে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে সিরিয়ার লাটাকিয়ায় নিজেদের বিমানঘাঁটিতে এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা মোতায়েন করে রাশিয়া। সিরিয়া-তুরস্ক সীমান্তের ওপর দিয়ে প্রদক্ষিণের সময় একটি এসইউ-২৪ রুশ যুদ্ধবিমান তুরস্ক ভূপাতিত করলে সিরিয়ায় এস-৪০০ মোতায়েন করে রাশিয়া।

রাশিয়ার বিমান ভূপাতিত করায় তুরস্কের সঙ্গে কূটনৈতিক টানাপড়েন সৃষ্টি হয়। সম্পাদনা : ইমরুল শাহেদ

আনন্দবাজার : যদি জানতে চাওয়া হয়, বিশ্বের সব চেয়ে ‘সেক্সিয়েস্ট জব’ কী?  ‘সেক্সিয়েস্ট জব’ বললে যা মাথায় আসবে, তা কিন্তু মোটেও নয়! কারণ, এখানে ‘সেক্সিয়েস্ট’ শব্দের সঙ্গে যৌনতার কোনও সম্পর্ক নেই। শব্দটির ব্যবহার হয়েছে ‘আকর্ষণীয়’ অর্থে। এ বার বোধহয় উত্তর দেওয়াটা একটু কঠিন হয়ে গেল! উত্তরটা অবাক হওয়ার মতোই! ‘ডেটা সায়েনটিস্ট’দের কাজকে বিশ্বের সব চেয়ে ‘সেক্সিয়েস্ট জব’ বলে মনে করা হয়। বছরখানেক আগেই হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউ ডেটা সায়েনটিস্ট বা তথ্য-বিজ্ঞানীদের কাজকে ‘সেক্সিয়েস্ট জব অব টুয়েন্টিফার্স্ট সেঞ্চুরি’ বলে আখ্যা দেয়। ২০১৬-এ ডেটা সংস্থা গ্লাসডোর-এর বিচারেও ‘বেস্ট জব অব দ্য ইয়ার’ নির্বাচিত হয় তথ্য-বিজ্ঞানীদের কাজ। এই সংস্থার প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, তথ্য-বিজ্ঞানীদের গড় বার্ষিক বেতন প্রায় ১ লাখ ১৬ হাজার ৮৪০ ডলার। গ্লাসডোর সংস্থার প্রধান অর্থনীতিবিদ অ্যান্ড্রু চেম্বারলিনের মতে, বর্তমান বিশ্বে ডেটা সায়েনটিস্ট বা তথ্য-বিজ্ঞানীদের চাহিদা দ্রুত বাড়ছে।

কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন, ডেটা মডেলিং, পরিসংখ্যানগত বিশ্লেষণ-সহ একাধিক বিষয়ে পারদর্শী হন এই ডেটা সায়েনটিস্টরা। শুধু প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন তথ্যগত সমস্যার বিশ্লেষণ এবং সমাধান করা নয়, তথ্যের নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রেও তাদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সম্পাদনা : ইমরুল শাহেদ