রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » সৌদি ও আমেরিকার কারণে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মানবাধিকার সংগঠনগুলো নীরব


সৌদি ও আমেরিকার কারণে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মানবাধিকার সংগঠনগুলো নীরব


আমাদের অর্থনীতি :
13.09.2017

ডেস্ক নিউজ : ইসলামি মাজহাবগুলোর মধ্যে নৈকট্য সৃষ্টি বিষয়ক সংস্থার মহাসচিব আয়াতুল্লাহ মোহসেন আরাকি বলেছেন, অসহায় রোহিঙ্গা মুসলমানদের ব্যাপারে মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা, ওআইসিসহ আন্তর্জাতিক সব সংস্থা ও শান্তিকামী সংগঠনগুলোর দায়-দায়িত্ব রয়েছে।

আয়াতুল্লাহ মোহসেন আরাকি এক বিবৃতিতে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নৃশংস হত্যাকা-ের তীব্র সমালোচনা করে বলেছেন, দেশটির সরকার ও সেনাবাহিনীর ছত্রছায়ায় এবং আন্তর্জাতিক সমাজের নীরবতার সুযোগে উগ্র বৌদ্ধরা যেভাবে মুসলমানদের ওপর গণহত্যা চালাচ্ছে তা সকল বীভৎসতা ও কল্পনাকে ছাড়িয়ে গেছে। তিনি মিয়ানমারের অসহায় মুসলমানদের রক্ষায় এগিয়ে আসার জন্য বিশ্বের সব মুসলিম দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। পার্সটুডে

সংস্থার মহাসচিব মিয়ানমারের সব নাগরিকের স্বাধীনতা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য দেশটির সরকার ও মুসলমানদের মধ্যে সংলাপ ও মধ্যস্থতা করার জন্য তার প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন।

এদিকে, ইরানের সংসদ মজলিশে শূরায়ে ইসলামির মানবাধিকার সংক্রান্ত বিভাগ এক বিবৃতিতে মিয়ানমারে উগ্র বৌদ্ধ ও সেনাবাহিনীর হাতে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যার নিন্দা জানিয়ে এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠনগুলোর নীরবতার তীব্র সমালোচনা করেছে। বিবৃতিতে অভিযোগ করা হয়েছে, আমেরিকা ও সৌদি আরবের ডলারের কারণে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মানবাধিকার সংগঠনগুলো কোনো কথা বলছে না। সম্পাদনা : মাকসুদা লিপি