বৃহস্পতিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » প্রধান বিচারপতির বিদেশ গমন নিয়ে আইনজীবীদের একপক্ষের বিক্ষোভ কর্মসূচির বিরুদ্ধে অন্যপক্ষের মানববন্ধন


প্রধান বিচারপতির বিদেশ গমন নিয়ে আইনজীবীদের একপক্ষের বিক্ষোভ কর্মসূচির বিরুদ্ধে অন্যপক্ষের মানববন্ধন


আমাদের অর্থনীতি :
12.10.2017

এস এম নূর মোহাম্মদ : প্রধান বিচারপতির সব ধরণের যোগাযোগের মাধ্যম বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন। গতকাল বুধবার সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবী সমিতি আয়োজিত অবস্থান কর্মসূচিতে সভাপতির বক্তব্যে এ অভিযোগ করেন তিনি। বার সভাপতি বলেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে অন্তরীণ করে রাখা হয়েছে। তাকে জোর করে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে এবং এখন বিদেশে পাঠানো হচ্ছে। সারা দেশের আইনজীবীরা জানতে চান কারা প্রধান বিচারপতিকে

অন্তরীন করে রেখেছে। এছাড়া প্রধান বিচারপতিকে জনসম্মুখে না আনা পর্যন্ত আইনজীবীদের আন্দোলন চলবে বলেও ঘোষণা দেন তিনি।

এদিকে বিচারাঙ্গণকে কলুষিত করার জন্য সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনকে ব্যবহার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে কেন্দ্র করে সুপ্রিম কোর্টে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের কর্মসূচির প্রতিবাদ জানিয়ে গতকাল মানববন্ধনে অংশ নিয়ে এ অভিযোগ করেন তিনি। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সদস্য সচিব শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আজকে যখন সারা বিশ্ব লক্ষ্য করছে যে, আমরা নিজেদের পায়ে দাঁড়িয়ে নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে সারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছি, ঠিক তখনই সেই ষড়যন্ত্রের জালগুলো চলছে। প্রধান বিচারপতিকে কেন্দ্র করে সুপ্রিম কোর্টে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের ষড়যন্ত্রের দাঁত ভাঙা জবাব দেওয়ার কথা জানান তিনি। প্রয়োজনে সুপ্রিম কোর্টে সাধারণ সভা ডেকে সভাপতি জয়নুল আবেদীন এবং সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকনকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করারও হুঁশিয়ারি দেন তাপস।

এদিকে প্রধান বিচারপতিকে সুপ্রিম কোর্টে ফিরিয়ে দিতে ২৫-৩০ জন তরুণ আইনজীবী তার বাসভবনের দিকে পদযাত্রা করে। ন্যাশনাল ল’ইয়ার কাউন্সিলের ব্যানারে আইনজীবীদের পদযাত্রা সুপ্রিম কোর্ট বার ভবন থেকে সুপ্রিম কোর্ট মাজার গেটে পৌঁছালে পুলিশ তাদের আটকে দেয়। এরপর আইনজীবীরা শ্লোগান দিয়ে আবার সুপ্রিম কোর্ট বারের ফিরে আসে। সম্পাদনা : গিয়াস উদ্দিন আহমেদ